বাঘাইছড়িতে অসহায় দিনমজুর ইসমাইলের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ইউএনও

রাঙামাটি জেলা প্রতিনিধি, আরাফাত হোসেন বেলাল: বাঘাইছড়িতে প্রতিবেশীর হামলায় আহত অসহায় এক দিনমুজুরের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আহসান হাবিব জিতু, আহত দিনমজুর ইসমাইল (৪০) রুপকারী ইউনিয়নের বরাদম এলাকার মৃত আবতাব উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাযায় পারিবারিক কলহের জেরে পেছনদিক থেকে আঘাত করে এক দিনমুজুর ইসমাইলের ডান পা ভেঙ্গে দিয়েছে জয়নাল (৪৫) নামের তারই এক প্রতিবেশী সে একই এলাকার মৃত বদিউজ্জামানের ছেলে। হামলার পর থেকেই বিচারের নামে প্রহসনের শিকার হয়ে অবহেলা ও বিনা চিকিৎসায় এখন দিনমুজুর ইসমাইলের পা-টি অকেজো হওয়ার উপক্রম।

স্থানীয় ভাবে দীর্ঘদিন বিচার না পেয়ে ৪ জুন বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আহসান হাবিব জিতুর দারস্থ্য হলে, সঠিক বিচারের আশ্ব্যাস দিয়ে দিনমুজুরের চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহন করেন এবং তাৎক্ষণিক উপজেলার হেল্থকেয়ার ডাইগোস্টিক সেন্টারে যোগাযোগ করে চিকিৎসার ব্যাবস্থা করেন। দিনমুজুরের বাসায় কোন খাবার না থাকায় ত্রাণ ভান্ডার থেকে ১০ কেজি চালসহ নৃত্য প্রয়োজনীয় খাবার বাসায় পৌছে দেন।

তারই ধারাবাহিকতায় ৫ জুন শুক্রবার সকাল ১১ ঘটিকায়, বাঘাইছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ বিষ্ণুপদ দেবনাথ বিনামূল্য হেল্থকেয়ার ডাইগোস্টিক সেন্টারে নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও পরীক্ষা শেষে চিকিৎসা পত্র দেন এবং দ্রুত্বতম সময়ের মধ্যে উন্নত চিকিৎসার জন্য খাগড়াছড়ি প্রেরনের পরামর্শ প্রদান করেন।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ বলেন ঘটনার দিন ইসমাইল পাহাড় থেকে বাঁশ সংগ্রহ করে কাঁধে নিয়ে ফেরার পথে জয়নাল ঝোপের আড়াল থেকে লাঠি দিয়ে আঘাত করে এতে ইসমাইলের ডান পাঁটি ভেঙ্গে যায় তৎক্ষানিক তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যাবস্থা করার জন্য জয়নালকে বলা হয়, কিন্তু জয়নাল ডাক্তারি চিকিৎসা রেখে কবিরাজি চিকিৎসায় আসে তাই এখনো ইসমাইল সুস্থ্য হয়নি সুস্থ্য হলে উপযুক্ত বিচার করা হবে বলা হয়। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে আগামী কাল মীমাংসার চেষ্টা করবো।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে হামলাকারী জয়নালের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে হামলার বিষয়টি শিকার করে পারিবারিক কলহের কথা বলে।

বাঘাইছড়ি থানার ওসি এম এ মনজুর বলেন বিষয়টি আমরা শুনেছি তবে কেও লিখিত অভিযোগ করেনি আমরা ভিকটিমদের পরিবারের সাথে কথা বলে অভিযোগ দিতে বলেছি হাতে পেলে ব্যাবস্থা নিবো। ইসমাইলের ছোটভাই মোঃ শাহাআলম বলেন, আমরা ঘটনার পরপরই থানায় অভিযোগ দিতে চেয়েছি কিন্তু ইউপি সদস্য আব্দুল হামিদ এলাকায় সমাধান করবে বলে অভিযোগ দিতে নিষেধ করে, কিন্তু দীর্ঘদিনেও কোন বিচার পায়নি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান হাবিব জিতু বলেন শীর্ঘ্রই দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা করা হবে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email25