রাজপথ নিরুত্তাপ চন্দনাইশে বিএনপি এবং এলডিপি’র রাজনৈতিক কর্মকান্ডে স্থবিরতা-কর্মীরা হতাশ

মো. দেলোয়ার হোসেন, চন্দনাইশ প্রতিনিধি: আ’লীগ, বিএনপি, এলডিপি ও অন্যান্য রাজনৈতিক সংগঠনগুলো রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে গেলেও এ বছর চন্দনাইশের চিত্র ভিন্ন রূপ। সারা বাংলাদেশে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হলেও চন্দনাইশে এ ধরনের অনুষ্ঠান ছিলই না বললে চলে। রাজপথ সম্পূর্ণ নিরুত্তাপ। নেই রাজনৈতিক হানাহানি ও কর্মসূচি। এলডিপি’র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড. কর্ণেল অলি’র গাড়ী বহরের উপর গত ১২ জুলাই কুমিল্লার চান্দিনায় হামলা চালানোর পর চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় মানববন্ধন করা হলেও চন্দনাইশে একটি সংবাদ সম্মেলন ছাড়া আর কোন কর্মসূচি পালন করতে পারেনি নেতাকর্মীরা। ২০ দলীয় জোটের নির্বাচনী বৈতরনীতে স্থান পাবেন কিনা কর্ণেল অলি এ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের।

চলতি বছর চন্দনাইশের রাজনৈতিক অঙ্গন ছিল অনেকটা নিরুত্তাপ। মামলা আর গ্রেফতার আতংকে কেটেছে সারা বছর বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের। কিছু কিছু কেন্দ্রীয় কর্মসূচি ছাড়া কার্যতঃ বক্তৃতা-বিবৃতির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল সরকার বিরোধী আন্দোলন। সারা বাংলাদেশে বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হলেও চন্দনাইশে সে ধরণের কোন কর্মসূচি পালন হচ্ছে না বিএনপি বা ২০ দলীয় জোট। এ দিকে গত ১২ জুলাই এলডিপি’র প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান কর্ণেল অলির গাড়ী বহরে কুমিল্লার চাান্দিনায় হামলা চালানোর পর চট্টগ্রামসহ কিছু এলাকায় মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা সহ কর্মসূচি পালন করা হলেও কর্ণেল অলির নিজ আসন তথা নিজ এলাকায় কয়েকজন নেতাকর্মী নিয়ে শুধুমাত্র একটি সংবাদ সম্মেলন ছাড়া আর কোন কর্মসূচি পালন করেনি। এ ব্যপারে উপজেলা এলডিপি’র সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আকতার আলম বলেছেন, চন্দনাইশে না করলেও মহানগরে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছেন।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আ’লীগের নেতা-কর্মীরাও দলীয় বিভক্তির কারণে রাজপথে খুব একটা সরব ছিল না। সরকারি কর্মসূচি ও উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরী। দেশের অন্যতম শীর্ষ রাজনৈতিক দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অংশগ্রহণ ছাড়াই ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। চলতি বছর ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। সে লক্ষ্যে সরকার দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে ময়দানে চষে বেড়ালেও নির্বাচনী তৎপরতা নেই বিএনপি প্রার্থীদের। বিভিন্ন সূত্র মতে জানা যায়, বিএনপি থেকে- তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক শিক্ষা ও বাণিজ্য উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর করিমের ছোট ভাই, কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা ডা. মহসিন জিল্লুর করিম এবং জোটবদ্ধ হলে এলডিপি’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, প্রাক্তন মন্ত্রী ড. কর্ণেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম মনোনয়ন পেতে পারেন। ফলে, বিএনপি’র অন্যান্য সিনিয়র নেতৃবৃন্দরা তেমন কোন কর্মসূচি পালন করতে আগ্রহী হচ্ছে না বলে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের অভিমত। সবমিলিয়ে চন্দনাইশ রাজনৈতিক মাঠ ছিল নিরুত্তাপ।

আমিরুল মুকিম// শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email