মেসির বাবা ও বার্সেলোনা সভাপতির সভায় নতুন প্রস্তাব বার্সার

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে লিওনেল মেসির বাবা ও ক্লাব বার্সেলোনা সভাপতির আলোচিত সভা। দেড় ঘণ্টার মিটিংয়ে নিজেদের অবস্থানে অনঢ় ছিলো বার্সা কর্তৃপক্ষ। আবারও আর্জেন্টাইন তারকার ফ্রি ট্রান্সফারের প্রস্তাব তুলে ধরেন হোর্হে মেসি। তবে, সেটি প্রত্যাখ্যান করে দুই বছরের নতুন চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছে বার্সা।

মায়ার প্রাচীরে শেওলা ধরেছে। চিরাচরিত অভিবাদনের জায়গায় এখন চোখজুড়ে ধূমায়িত ক্ষোভ। কে নেভাবে আগুন?

ক্রমশ জট বাঁধে। সুরাহা হয়না। ধারণা করা হচ্ছিলো, লিওনেল মেসির বাবা ও এজেন্ট হোর্হে মেসি ও ক্লাব বার্সেলোনার সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তোমিউয়ের মিটিং থেকেই চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত আসবে। কিন্তু, রোজারিও থেকে বার্সেলোনায় ভ্রমণের ঝক্কি একরকম বৃথাই গেছে হোর্হের। দেড় ঘন্টার মিটিংয়ে ছিলেন লিও’র ভাই ও উপদেষ্টা রদ্রিগো মেসিও। আর বার্তোমিউয়ের সঙ্গে ছিলেন বার্সা পরিচালক হাভিয়ের বোর্দাস।

বার্তোমিউ নাকি কড়া কড়া কথাই শুনিয়ে দিয়েছেন। নিয়মানুযায়ী নাকি অনুশীলনে ফেরার কথা লিও’র। এমনকি ট্র্যান্সফারের ব্যাপারে কোনোরকম ছাড় দেবেনা তারা।

ফ্রি ট্র্যান্সফারের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছে কাতালান ক্লাবটি। মলিন চেহারা নিয়ে ফিরে গেছেন মেসি পরিবারের সদস্যরা। ক্লাবে প্রবেশের সময় গণমাধ্যমকে ছোট্ট করে বলা হোর্হের কয়েকটা শব্দেই পরিস্থিতি অনুমান করা যায়। ডিফিসিল। স্প্যানিশ শব্দটার বাংলা অর্থ দাঁড়ায়- কঠিন। কাতালোনিয়ায় আর্জেন্টাইন তারকা থাকছেন কি না, সে প্রশ্নেরই এই নির্লিপ্ত উত্তর হোর্হে মেসির। এ উত্তর শেল হয়ে বিঁধেছে কাতালান সমর্থকদের হৃদয়ে।

নিয়মের মারপ্যাঁচ এড়িয়ে যেতে বেশ সাবধানী লিওনেল মেসি পক্ষ। বুরোফ্যাক্সে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, কাগজে-কলমে ফাঁক রাখতে চান না। ক্লাব বার্সেলোনাও গোঁ ধরেছে। একটা কার্ড যে বার্তোমিউয়ের হাতে। রিলিজ ক্লজের ঘরটাতে বসিয়ে দিয়েছেন ৭০০ মিলিয়ন ইউরো। চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার বছর খানেক আগে ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছে পূরণে বার্সার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্র্যান্সফার করতে হবে এই অর্থ।

লিও’র গন্তব্য সবারই জানা। পুরনো গুরু পেপ গার্দিওলা আর বন্ধু সার্জিও অ্যাগুয়েরোর হাত ধরতে চান। কাতালোনিয়ার মিটিংয়ে সজাগ দৃষ্টি ছিলো ম্যানচেস্টার সিটি ক্লাব কর্তৃপক্ষের। তবে, সভায় আশানুরূপ কিছু পায়নি সিটি ফুটবল গ্রুপ। ৭০০ মিলিয়ন ইউরো বোধ হয় ব্যয় করতেই হচ্ছে তাদের।

নাগরিক নিউজ/এনএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email