মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

রোববার টাঙ্গাইলের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আবুল মনসুর মিয়ার আদালতে এ মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ হয়।

কোর্ট ইন্সপেক্টর মো. আনোয়ারুল ইসলাম জানান, আগামী ২০ মার্চ এই মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

এর আগে অসুস্থতার কারণ উল্লেখ করে আসামি সাংসদ আমানুর রহমান খান রানাকে আদালতে হাজির করতে না পারায় কয়েকবার সাক্ষ্য গ্রহণ পেছানো হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও অতিরিক্ত পিপি মনিরুল ইসলাম খান জানান, কেরানিগঞ্জে অবস্থিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মামলার প্রধান আসামি টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানাকে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে আদালতে আনা হয়।

“সকাল ১১টায় মামলার বাদী নাহার আহমেদের সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। পরে আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুল বাকি বাদীকে জেরা করেন। জেরা অসমাপ্ত রেখে আদালত মুলতবি করা হয়।”

এ মামলায় আটক আসামি আনিসুল ইসলাম রাজা, মোহাম্মদ আলী ও মো. সমিরকেও আদালতে হাজির করা হয়। জামিনে থাকা তিন আসামি মাসুদুর রহমান, ফরিদ আহম্মেদ ও নাসির উদ্দিন নুরু আদালতে হাজির হন।

২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি টাঙ্গাইল শহরের কলেজপাড়া এলাকার নিজ বাসার কাছ থেকে জেলা মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিন দিন পর ফারুকের স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় টাঙ্গাইল- ৩ (ঘাটাইল) আসনের এমপি রানাকে প্রধান আসামি করে এবং তার তিন ভাইসহ মোট ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর অভিযোগ গঠন করা হয়।

দীর্ঘদিন পালিয়ে থেকে সাংসদ রানা গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইলের আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

সাক্ষ্য গ্রহণের প্রথম দিন ছিল ১৮ অক্টোবর, দ্বিতীয় দিন ছিল ১ নভেম্বর ও তৃতীয় দিন ছিল ২৭ নভেম্বর। ওই তিনটি তারিখেই সাক্ষ্য গ্রহণের দিন পেছানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email