ব্রিটেনে ভালোবাসা দিবসের জন্ম চতুর্দশ থেকে পঞ্চদশ শতাব্দীতে

ব্রিটেনে ভালোবাসা দিবসে নারীদের গর্ভধারণের হার বাড়ছে। এমন তথ্য প্রকাশ করেছে দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তর। ওই পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশ করেছে ইন্ডিপেনডেন্ট। দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তরের পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, ভালোবাসা দিবসে নারীদের গর্ভধারণের হার বাড়ছে। ‍যদিও এই গর্ভ ধারণের হার ক্রিসমাস ছাড়াতে পারেনি।

এনএইচএসর ২০১৫ সালের তথ্যে দেখা যায়, বছরের অন্য সপ্তাহগুলোর চেয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারিসহ আগের ও পরের সাতদিন গর্ভধারণের হার ৫ শতাংশ বেশি। এনএইচসের আরেকটি পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, ভালোবাসা দিবসের চেয়ে ক্রিস্টমাসে গর্ভধারণের হার এখনও বেশি। এছাড়া ঈদুল ফিতরের সময়ও গর্ভধারণ অন্য সময়ের চেয়ে বেশি হয়।

সাধারণত প্রতি সপ্তাহে গড়ে ১৫ হাজার ৪২৭টি গর্ভধারণের ঘটনা ঘটে। ভালোবাসা দিবসের সপ্তাহে গর্ভধারণের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ১৬ হাজার ২৬৩টি।

উল্লেখ্য, ব্রিটেনে ভালোবাসা দিবসের জন্ম চতুর্দশ থেকে পঞ্চদশ শতাব্দীতে । সেখানে ভালোবাসা দিবস নিয়ে উল্লাস একটু বেশিই থাকে। প্রচলিত ধারণা মতে, ভালোবাসা দিবসে ব্রিটেন এবং ইতালির অবিবাহিত মেয়েরা সূর্যোদয়ের আগে ঘুম থেকে উঠে। তারা বিশ্বাস করে, সূর্যোদয়ের পর প্রথম যে পুরুষকে তারা দেখবে সে অথবা তার মতোই কোনও পুরুষ এক বছরের মধ্যে তাদের জীবনসঙ্গী হবে। এ ছাড়া অবিবাহিত মেয়েরা কাগজে পছন্দের ছেলের নাম লিখে সেই কাগজ মাটির বলে পেঁচিয়ে পানিতে ফেলে দেয়। যে নামের কাগজ সবার আগে ভেসে উঠবে তার সঙ্গেই বিয়ে হবে মেয়েটির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email