ব্রজমোহন কলেজ হোস্টেলে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে গণধোলাই

বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন কলেজের বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসে ছাত্রলীগের এক নেত্রীকে গণধোলাই দিয়েছে সাধারণ ছাত্রীরা। পাশাপাশি ওই ছাত্রলীগ নেত্রীর রুমের আসবাবপত্রও পুড়িয়ে দিয়েছে তারা।

রোববার(২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ছাত্রী নিবাসের দুই নম্বর বিল্ডিংএ এই ঘটনা ঘটে। সাধারণ ছাত্রীরা ঘটনার পর ছাত্রীনিবাসের সামনের ব্যস্ততম সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। পরবর্তীতে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

গণধোলাইয়ের শিকার ছাত্রলীগ নেত্রী ফারজানা আক্তার ঝুমুর রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী।

জানা গেছে, ছাত্রলীগ নেত্রী ঝুমুর দীর্ঘদিন যাবত বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসে অবস্থানের পাশাপাশি হলের আবাসিক ছাত্রীদের নানাভাবে হয়রানি করতো।

সাধারণ ছাত্রীদের অভিযোগ, বিভিন্ন সময় সাধারণ ছাত্রীদের নির্যাতন করতো ঝুমুর। এই ঘটনার জেরে হলের আবাসিক ছাত্রীরা জোটবদ্ধ হয়ে বিএম কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর একটি স্মারকলিপি দেন।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, কলেজের বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের আবাসিক ছাত্রী ও ছাত্রলীগ নেত্রী ফারজানা আক্তার ঝুমুর দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ ছাত্রীদের নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ড করার জন্য চাপ প্রয়োগ করতো। আর তার কথা না শুনলেই মারধর থেকে শুরু করে নানা অত্যাচার করতো।

ছাত্রলীগের নাম করে হোস্টেলে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতেন। এর মধ্যে পয়লা জানুয়ারি বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের দুই নম্বর ভবনের ছাত্রী ঐশী কথা না শোনায় তাকে ঘুমন্ত অবস্থায় বেধড়ক মারধর করে হল থেকে বের করে দেয় ঝুমুর। এরপর ১৯ মার্চ দুই নম্বর ভবনের আবাসিক ছাত্রী শারমিনকে বেধড়ক মারধর করে। সর্বশেষ ২০ এপ্রিল জান্নাত ও ইভা নামে দুই ছাত্রীকে মারধরের হুমকি দেয়। স্মারকলিপিতে সাধারণ ছাত্রীরা হল থেকে ঝুমুরকে বহিষ্কারের দাবি জানান।

বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রী নিবাসের দুই নম্বর ভবনের আবাসিক ছাত্রী রহিমা আফরোজ ইভা জানান, দীর্ঘদিন যাবত রাজনৈতিক দোহাই দিয়ে ঝুমুর অনৈতিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিল। আর তার কথা মতো কেউ না চললেই তাকে চরম পরিণতি ভোগ করতে হতো।

ছাত্রী নিবাস সূত্রে জানা যায়, স্মারকলিপি দেয়ার বিষয়টি ঝুমুর টের পাওয়ায় গতকাল রোববার ছাত্রীদের মারধরের একপর্যায়ে সাধারণ ছাত্রীরা পুনরায় জোটবদ্ধ হয়ে ঝুমুরকে গণধোলাই দেয়। এর পাশাপাশি ঝুমুরের রুমে থাকা আসবাবপত্র মূল সড়কে এনে পুড়ে ফেলে। এসময় বেশ কিছুক্ষণ সড়কে যান চলাচলও বন্ধ ছিল।

এ বিষয়ে ব্রজমোহন কলেজের অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান সিকদার জানান, আমি এই মুহূর্তে ঢাকায় আছি। পুরো বিষয়টি জানি না।

বরিশাল ব্রজমোহন কলেজের উপাধ্যক্ষ স্বপন কুমার পাল জানান, অভিযোগ পাওয়া গেছে এবং বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা চলছে।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার সহকারী কমিশনার শাহনাজ পারভীন বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email