যুদ্ধাপরাধী গিয়াস উদ্দিন কাদের

প্রাণনাশের হুমকি, প্যানেল মেয়র হাসনীর বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা-ফাউন্ডেশন সিইও’র জিডি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ-

 

একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে প্রাণনাশের হুমকি দেয়ায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোশনের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনীর বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি(জিডি) করেছেন বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী ও বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা চট্টগ্রাম নগর শাখার সভাপতি মুহাম্মদ সাজ্জাত হোসেন। এই ব্যাপারে মুহাম্মদ সাজ্জাত হোসেনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গত সোমবার দুপুরে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম সাহাদাৎ হোসেন ভূঁইয়ার আদালতে তিনি এ সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

জিডিতে নগরের দেওয়ানবাজার ওয়ার্ডের কমিশনার ও প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী গত শনিবার (২৬ মে) চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের ইফতার পার্টিতে একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে সাজ্জাত হোসেনকে তেড়ে গিয়ে মারতে উদ্যত হন এবং একপর্যায়ে ছেলেদের দিয়ে রাস্তাঘাটে পিটিয়ে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়ার কথা উল্লেখ করে সাজ্জাত হোসেন আদালতের কাছে তার শঙ্কার কথা জানান এবং জীবনের নিরাপত্তা চান।

জানা যায়, এর আগে ১৭ মে মুহাম্মদ সাজ্জাত হোসেন তার ফেসবুকে ‘দলের চেয়ে নেতা বড়, নেতার চেয়ে ওসি বড়’ শিরোনামে স্ট্যাটাসের সঙ্গে একটি ছবি জুড়ে দেন। তাতে সিএমপির কোতোয়ালী থানার নবাগত ওসি মোহাম্মদ মহসীনকে কোতোয়ালী থানায় উপস্থিত হয়ে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে দেখা যায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনীসহ সিটি করপোরেশনের ১২ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে।

ফেস বুক স্ট্যাটাস এর ছবিতে দেখা যায়, ওসিকে শুভেচ্ছা জানাতে কোতোয়ালী থানায় উপস্থিত হওয়া অন্য ওয়ার্ড কাউন্সিলরগণ হলেন, আলকরণ ওয়ার্ডের তারেক সোলায়মান সেলিম, বাগমনিরাম ওয়ার্ডের গিয়াস উদ্দিন, চাক্তাই ওয়ার্ডের হাজী নুরুল হক, দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ডের ইসমাইল হোসেন বালি, আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের জহরলাল হাজারি, ফিরিঙ্গবাজার ওয়ার্ডের হাসান মুরাদ বিপ্লব, এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের সেলিম উল্লাহ বাচ্চু, জামালখান ওয়ার্ডের শৈবালদাশ সুমন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের লুৎফুন্নেসা দোভাষ বেবী, আন্জুমান আরা বেগম, নিলু নাগ।

এদিকে, জনগণের ভোটে নির্বাচিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত কাউন্সিলরদের সরকারের একজন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তার দপ্তরে সদলবলে হাজির হয়ে এভাবে শুভেচ্ছা জানানোর বিষয়টিকে ভালোভাবে নেননি ফেসবুক ব্যবহারী অনেকেই। ফলে তারা সাজ্জাত হোসেনের এ সংক্রান্ত পোস্টে নানান মন্তব্য করেন।

প্রাক্তন ছাত্রনেতা, চট্টগ্রাম নগর আ.লীগের সদস্য জামশেদুল আলম চৌধুরী কমেন্ট বক্সে লিখেন, ‌‌’একজন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা তাদের অবস্থান থেকে সরে এসে যেভাবে তোষামোদ করছে, মনে হচ্ছে তিনিই তাদের আশা ভরসার শেষস্থল।’

মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন নামে একজন লিখেন, তেলেসমাতি একটু বেশি হয়ে গেল, সদলবলে সিম্পল একজন থানার ওসি সাহেবের কাছে যাওয়ার কারন কী? তিনি কি দেশের একজন বিখ্যাত পুলিশ! নাকি বিখ্যাত একজন ব্যবসায়ী! নাকি একজন রাজনীতিবিদ! যাই হোক না কেন, তবে ওসি সাহেব খুব সৌভাগ্যবান পুলিশ।

এরপর গত শনিবার চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিলে দেখা হলে প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী এই ইস্যুতে সাজ্জাত হোসেনকে মারতে উদ্যত হন এবং প্রাণনাশের হুমকি দেন বলে সাজ্জাত অভিযোগ করেন এবং মোবাইল ফোনে জানান।

সাজ্জাত হোসেন বলেন, ‌’দলের চেয়ে নেতা বড়, নেতার চাইতে ওসি বড়’ এই পোস্টটা দেওয়াতে গত শনিবার আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিলে হাসনী ভাই আমার সাথে খারাপ আচরণ করেছেন। সাজ্জাত আরো বলেন,আমি বারবার হাসনি ভাইকে বুঝাতে চেষ্টা করেছি এটা আপনাকে উদ্দেশ্য করে নয়। কিন্তু তিনি মানতে নারাজ। তিনি আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। এরপর সেই রাতেই আমি থানায় জিডি করার জন্য কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীনের কাছে যাই।’ কিন্তু ও,সি সযোগিতা না করলে এরপর আমি বলেছি, ‌’আপনি জিডি না নিলে আমি আদালতের আশ্রয় নেবো। এই বলে চলে আসলাম।’ বলেন সাজ্জাদ।

সাজ্জাত বলেন, দুই জনপ্রতিনিধি ও ওসির এমন আচরণে তিনি শঙ্কিত হয়ে পড়েন। ফলে জীবনের নিরাপত্তার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন ।সাজ্জাত বলেন, এখন তিনি খুবই আতংকিত জীবনে নিরাপত্তা নিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email