হাইকোর্টের দেয়া জামিনের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে আপিল রাষ্ট্রপক্ষ

কুমিল্লার নাশকতার দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিনের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে আপিল করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

আজ সোমবার দুপুরে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম চেম্বার আদালতে আপিল আবেদন করেন।

সোমবার সকালে এ দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি একেএম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জেবিএম হাসানের ডিভিশন বেঞ্চ এ জামিন আদেশ দেন। নড়াইলে দায়ের করা মানহানির মামলায় জামিন আবেদন খারিজ করা হয়।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী ও মাহবুব উদ্দিন খোকন। আরও ছিলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জয়নুল আবেদীন, বদরোদ্দোজা বাদল প্রমুখ।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তার সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মমতাজ উদ্দিন ফকির, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ, ড. মো. বশির উল্লাহ।

রায়ের পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম চেম্বার আদালতে আপিল করার কথা নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন।

আপিলের যৌক্তিকতা প্রসঙ্গে মাহবুবে আলম বলেছিলেন, মামলা দুটি নিম্ন আদালতে বিচারাধীন। নিয়ম হচ্ছে, নিম্ন আদালতের সিদ্ধান্ত হলে এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আসা যাবে। কিন্তু, নিম্ন আদালতের সিদ্ধান্তের অপেক্ষা না করে এভাবে উচ্চ আদালতে চলে আসলে, অন্য সাধারণ মানুষও এই চর্চা করবে। তাতে বিচার প্রক্রিয়ায় প্রভাব (বিরূপ) পড়বে। তাই আমরা হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে যাব।

রোববার কুমিল্লায় নাশকতার দুই মামলা ও নড়াইলের মানহানির মামলার ওপর শুনানি শেষ হয়। গেল ২২, ২৩ ও ২৪ মে জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়।

বিএনপির ডাকা হরতাল-অবরোধ চলাকালে ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে কক্সবাজার থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আইকন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী নৈশকোচ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পৌঁছালে পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে দুর্বৃত্তরা। বাসে আগুন ধরে ৮ জন যাত্রী পুড়ে মারা যায়। এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়। মামলা দুটিতে খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করা হয়। চলতি বছরের ২ জানুয়ারি কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ ২টি মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপি-জামায়াতের ৭৮ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।

অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্যের অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নামে নড়াইলের একটি আদালতে ১ কোটি টাকার মানহানি মামলা দায়ের করা হয়।

নড়াইল জেলার নড়াগাতি থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রায়হান ফারুকী ইমাম বাদী হয়ে ২০১৫ সালের ২৪ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নড়াইল সদর আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। এ মামলায় ২০১৬ সালের ২৫ জুলাই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সমন জারি করেন আদালত। সমন গ্রহণ না করায় ২৩ আগস্ট খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন একই আদালত।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দুর্নীতির অভিযোগের মামলায় খালেদা জিয়াকে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। সেই থেকে তিনি কারাবন্দি রয়েছেন পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় করাগারে। ওই মামলায় আপিলের পর খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট। যেটি গত ১৭ মে বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email