ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ, গণপিটুনিতে ২ ডাকাত নিহত

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ও যশোরে গণপিটুনিতে দুই ডাকাত নিহত হয়েছেন।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে সুমন ওরফে টাওয়ার সুমন নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। সোমবার ভোর রাতে সোনারগাঁয়ের শান্তিবাজারে এ ঘটনা ঘটে।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোর্শেদ আলম জানান, একদল ডাকাত বারদী ইউনিয়নের শান্তিবাজার এলাকায় ডাকাতির চেষ্টা করছে, এমন খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে ডাকাত দল পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে সুমনের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ওসি আরও জানান, পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

এদিকে যশোর-মাগুরা মহাসড়কে গণপিটুনিতে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ভোররাত আড়াইটার দিকে যশোর-মাগুরা মহাসড়কের নোঙরপুর মাজারের পাশে এ গণপিটুনির ঘটনা ঘটে। নিহত ডাকাত বুলি (৪০) যশোর সদর উপজেলার হাশিমপুর গ্রামের বাসিন্দা। খবর পেয়ে পুলিশ নিহত ডাকাতের মরদেহ উদ্ধার করেছে।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আজাদুল ইসলাম জানান, সোমবার দিনগত রাত দু্ইটার দিকে যশোর-মাগুরা মহাসড়কের নোঙরপুর এলাকায় একদল ডাকাত গাছ কেটে সড়ক ডাকাতির চেষ্টা করে। এসময় ডাকাতদের কবলে পড়া লোকজনের চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এসে ডাকাতদের ধাওয়া করে।

ধাওয়ার মুখে অন্যরা পালিয়ে গেলেও একজনকে ধরে তারা গণপিটুনি দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ তার পরিচয় নিশ্চিত হয়।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি কেএম আজমল হুদা জানান, নিহত ডাকাত বুলির বিরুদ্ধে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় দুটিসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শহিদুল্লাহ সবুজ জানান, হাসপাতালে আনার আগেই বুলির মৃত্যু হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email