জঙ্গিবাদ ও মাদক প্রতিরোধ স্কুল-কলেজ-কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা: সিএমপি

নিউজ ডেস্কঃ জঙ্গিবাদ ও মাদক প্রতিরোধ এবং শিক্ষার্থীদের মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা চালু করতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে সিএমপির বিভিন্ন জোনের উপ-পুলিশ কমিশনারদের কাছে।

প্রতিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সার্কেলের সহকারী কমিশনারদের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হবে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং। বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক হবেন স্কুলভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিংয়ের আহ্বায়ক এবং প্রতিটি শ্রেণি থেকে প্রতিনিধি থাকবে এ কমিটিতে।

গতবছর থেকে সিএমপির কয়েকটি এলাকার বিদ্যালয়ে এ ব্যবস্থা চালু করা হলেও তেমন কার্যক্রম ছিল না। বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে করা হয়েছিল কমিটি। কিছুদিন কার্যক্রম চললেও পরে স্থবির হয়ে পড়ে।

মাসখানেক আগে সিএমপিতে কমিশনার হিসেবে যোগদানের পর মো. মাহাবুবর রহমান জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাস দমনে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এরই অংশ হিসেবে তিনি স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা জোরদার করতে চান।

তিনি চান শিক্ষার্থীরা যাতে মাদক ও জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকে এবং কোনো অপরাধে না জড়ায়। মাদকের কুফল সম্পর্কে সচেতন করতে চান শিক্ষার্থীদের।

সিএমপি কমিশনার বলেন, জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাস প্রতিরোধ ও শিক্ষার্থীদের মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা জোরদার করার উদ্যোগ হাতে নিয়েছি। সিএমপির বিভিন্ন জোনের উপ-পুলিশ কমিশনারদের মাধ্যমে এমন নির্দেশনা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীরা যাতে মাদক ও জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকে এবং কোনো অপরাধে না জড়ায় সে ব্যাপারে সচেতন করার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখবে এ কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা।

এর আগে কমিউনিটি পুলিশিংয়ে ভালো ফিডব্যাক পেয়েছে সিএমপি। কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সদস্যদের কাউন্সিলিংয়ে পুলিশের তালিকাভুক্ত অনেক মাদক ব্যবসায়ী ভালো পথে ফিরে এসেছে। অনেককে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে সহযোগিতা করেছে পুলিশ।

সিএমপি কমিশনার বলেন, কমিউনিটি পুলিশিং শিক্ষার্থীদের দায়িত্ববোধ জাগ্রত করবে। সচেতন নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে সাহায্য করবে।

তিনি বলেন, সবাইকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে মাসে অন্তত একটি করে সচেতনতামূলক সভা করা হয়।

স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থায় ভালো ফলাফল পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান।

সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসাইন বলেন, জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাস প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা জোরদার করার নির্দেশনা দিয়েছেন সিএমপি কমিশনার। থানার ওসিদের এ নির্দেশনা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। শিগগির এর কার্যক্রম নিয়ে কাজ শুরু হবে।

সমাজবিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিত্তিক কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, পুলিশের এমন উদ্যোগ ভালো কিছু দেবে আমাদের। সচেতনতার অভাবে আমাদের অনেক শিক্ষার্থী বিপথে চলে যায়। দেশবিরোধী কাজে জড়িয়ে পড়ে। মাদকের সঙ্গে জড়িয়ে যায়। পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

ড. সেন বলেন, শিক্ষার্থীরা যখন ভালো কোনো বিষয় নিয়ে কাজ করবে তখন খারাপ বিষয়গুলো তাদের সংস্পর্শে আসবে না। তাদের বিবেকবোধ, দায়িত্ববোধ তৈরি হবে। সত্যিকারের মানুষ হিসেবেই তারা গড়ে উঠবে।

প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাসের ক‍ুফল সম্পর্কে সচেতন করা গেলে এসব সমস্যা অনেকাংশে কমে আসবে বলে মন্তব্য করেন ড. অনুপম সেন।

গ্রামাঞ্চলে স্কুল-মাদ্রাসাগুলোতেও স্কুল কমিউনিটি পুলিশিং চালু করার পরামর্শ দেন তিনি।

ড. সেন বলেন, গ্রামাঞ্চলে স্কুল-মাদ্রাসাগুলোতেও যদি এ ব্যবস্থা চালু করা যায় তাহলে তাদের মধ্যেও সচেতনতা সৃষ্টি হবে। কেউ তাদের মগজ ধোলাই করে বিপথে নেওয়ার সুযোগ পাবে না।

আমিরুল মুকিম// বৃহস্পতিবার, ২৬ জুলাই ২০১৮// ১১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email