চিটাগাং চেম্বার সভাপতির সাথে রুশনারা আলী এমপি’র মতবিনিময়

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মাহবুবুল আলম’র সাথে সফররত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ বিষয়ক বাণিজ্য দূত রুশনারা আলী এমপি ২৪ জুলাই সকালে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় চেম্বারের সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলী আহমেদ, চেম্বার পরিচালক ওমর হাজ্জাজ, উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সহ-সভাপতি ডাঃ মুনাল মাহবুব, ব্রিটিশ উপ-হাইকমিশনার কেনবার হুসেইন বর, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিভাগের পরিচালক বেনজামিন কাটমোরে ও উপ-পরিচালক খালিদ গাফফার, বিনিয়োগ ও বাণিজ্য ব্যবস্থাপক আবির বড়–য়া এবং প্রেস অফিসার নারায়ণ নাথ উপস্থিত ছিলেন।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম চট্টগ্রাম-ঢাকা রেলপথে উন্নতমানের ট্রেন চালুর মাধ্যমে ৩ ঘন্টার মধ্যে যাতায়াত নিশ্চিত করা, কন্টেইনার সেবার মান ও গতি বৃদ্ধি এবং বে-টার্মিনাল নির্মাণে ব্রিটিশ সহায়তা কামনা করেন। তিনি মিরসরাই ইকনোমিক জোনে ওয়ান স্টপ সার্ভিস কাজে লাগিয়ে জাপান, ভারতসহ অনেক দেশ শিল্প স্থাপন করছে উল্লেখ করে একইভাবে ব্রিটিশ বিনিয়োগ বৃদ্ধির আহবান জানান। বিশেষ করে শ্রম মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে চীনসহ অন্যান্য দেশে অবস্থিত ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানসমূহ বাংলাদেশে স্থানান্তরের সুবিধাসমূহ উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশ বিষয়ক বাণিজ্য দূত রুশনারা আলী এমপি বাংলাদেশের উন্নয়নে তাঁর সরকার কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন কর্মকান্ড বর্ণনা করেন। বিশেষ করে দারিদ্র বিমোচন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং দক্ষ মানবসম্পদ তৈরীতে সহযোগিতার কথা জানান। এছাড়া বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপের মাধ্যমেও বাংলাদেশকে প্রচুর সাহায্য প্রদান করা হচ্ছে বলে অবহিত করেন যা সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করার মাধ্যমে কাংখিত উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা সম্ভব। ওয়েলস, স্কটল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে বাংলাদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ প্রোগ্রাম আরো জোরদার করা যায় বলেও তিনি মনে করেন।

চেম্বারের সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলী আহমদ বলেন-অতীতে অনেক বিখ্যাত মাল্টিন্যাশনাল ব্রিটিশ কোম্পানীর অফিস ও কারখানা চট্টগ্রামে অবস্থিত ছিল। কালক্রমে যদিও তা হ্রাস পেয়েছে। তিনি বর্তমান সরকার প্রদত্ত বিনিয়োগ সুবিধা কাজে লাগিয়ে আবারও সে অতীত ফিরিয়ে আনা সম্ভব বলে মন্তব্য করেন। পাশাপাশি চট্টগ্রাম-ঢাকা অর্থনৈতিক করিডোরের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের উপর গুরুত্বারোপ করে সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন। চেম্বার পরিচালক ওমর হাজ্জাজ বলেন-চট্টগ্রাম বন্দর সম্প্রসারণ এবং সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ সম্পন্ন হলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চেহারা আমূল বদলে যাবে। তিনি চীন-মার্কিন বাণিজ্য যুদ্ধের সুযোগ কাজে লাগাতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে যুক্তরাষ্ট্রে পণ্য রপ্তানীর পরামর্শ দেন।
উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সহ-সভাপতি ডাঃ মুনাল মাহবুব বলেন-শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাত ব্রিটিশ সরকারের অন্যতম আয়ের উৎস। বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী উচ্চ শিক্ষার্থে বৃটেন গমন করে। তিনি পারস্পরিক যৌথ কর্মসূচীর মাধ্যমে শিক্ষা খাতে সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি করার আহবান জানান।

আমিরুল মুকিম // বুধবার, ২৫ জুলাই ২০১৮ // ১০ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email