চট্টগ্রাম বন্দরকে বাঁচাতে নিয়োগ বানিজ্য, টেন্ডার দূর্নীতি, ক্রয় দূর্নীতি ও ব্যবস্থাপনা দূর্নীতি রোধ করুন: খোরশেদ আলম সুজন

নিজস্ব প্রতিনিধি:- চট্টগ্রাম বন্দরকে বাঁচাতে নিয়োগ বানিজ্য, টেন্ডার দূর্নীতি, ক্রয় দূর্নীতি ও ব্যবস্থাপনা দূর্নীতি রোধ করুন: খোরশেদ আলম সুজন

জাতীয় অর্থনীতির হৃদপিন্ড চট্টগ্রাম বন্দরের নিয়োগ বানিজ্য, টেন্ডার দূর্নীতি, ক্রয় দূর্নীতি, ব্যবস্থাপনা দূর্নীতি রোধ করতে না পারলে অচিরেই চট্টগ্রাম বন্দর পরিত্যক্ত বন্দরে পরিণত হবে বলে মত প্রকাশ করেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন।

তিনি ২৭মে রবিবার বিকেল ৩.০০ ঘটিকায় ডক বন্দর জাতীয় শ্রমিক লীগ আ লিক কমিটির আওতাভূক্ত সংগঠন সমূহের উদ্যোগে আয়োজিত এক সমাবেশে বক্তব্য রাখছিলেন।

জাতীয় শ্রমিক লীগ ডক বন্দর অ লের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ ইলিয়াছের সভাপতিত্বে চট্টগ্রাম পোর্ট এজেন্টস ষ্টিভিডোরস এন্ড কন্ট্রাক্টরস এমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে জনাব সুজন বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরই হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল প্রাণ। চট্টগ্রাম বন্দরকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির চিন্তার কোন সুযোগ নেই অথচ কিছু সংখ্যক অর্থলোভী মানুষ নিজের হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য বিভিন্নভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে চট্টগ্রাম বন্দরটিকে ক্রমশ একটি পরিত্যক্ত বন্দরে পরিণত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। লাইটারেজ জাহাজ সংকটের কারণে ব্যবসায়ীরা বহিঃনোঙ্গর থেকে পন্য পরিবহন করতে পারছে না ফলত ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। লাইটারেজ জেটি বানানোর জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে টেন্ডার প্রক্রিয়া আহবান করা হয়েছিল কিন্তু কে বা কাহারা সে টেন্ডার বক্স চুরি করল দেশের জনগন তাদের নাম জানতে চায়। যারা দিনে দুপুরে টেন্ডার বক্স চুরি করার দৃষ্ঠতা দেখায় দেশের স্বার্থে এদের মুখোশ উন্মোচন করা জরুরী। টেন্ডার বক্স চুরির ফলে মামলা দায়েরের কারণে পুরো টেন্ডার প্রক্রিয়া স্থগিত হয়ে পড়েছে পরিণামে আমদানীকারকগণ সীমাহীন দূর্ভোগে পড়তে যাচ্ছে। এ দূর্ভোগের দায় কোনভাবেই চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারেনা। ইয়াবা ও মাদক ব্যবসায়ীদের আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী যেভাবে ক্রসফায়ার দিচ্ছে ঠিক সেভাবে যারা বন্দরের টেন্ডার বক্স চুরির মাধ্যমে জামাত ঘরানার এক ব্যাক্তিকে দিয়ে লাইটারেজ জেটি বানাতে সহযোগীতা করছে এবং এ ধরনের অনৈতিক কর্মকান্ডে পৃষ্টপোষকতা করছে সে সকল মাফিয়াদেরও ক্রসফায়ার দেওয়ার জন্য আহবান জানান। তিনি বলেন, আমদানি পণ্য নিয়ে আসা জাহাজ মাল খালাসের অপেক্ষায় দাড়িয়ে থাকে সপ্তাহের পর সপ্তাহ। পৃথিবীর কোন বন্দরে এত দীর্ঘ সময় অপেক্ষমান থাকতে হয়না কোন জাহাজকে। অতিরিক্ত জাহাজ ভাড়া যুক্ত হয় আমদানি পণ্যে। দেশে বাড়ে ভোগ্য পণ্যের দাম। বন্দরের ১ থেকে ৫নং জেটি আজ প্রায় পরিত্যক্ত পলিজমার কারণে।

ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের নামে দুর্নীতিবাজদের পকেটে ঢুকেছে কোটি কোটি টাকা, দুর হয়নি জমা পলি। বন্দরের যন্ত্রপাতি ক্রয়ে ডি.পি.এম পদ্ধতির নামে সিন্ডিকেটের পকেট ভারী হচ্ছে, লোপাট হচ্ছে বন্দরের অর্থ। চট্টগ্রাম বন্দরের নিয়োগ বাণিজ্য এখন দিনদুপুরের ঘটনা। স্থানীয় জনগন যারা বন্দরসহ বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী, স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের হুকুম দখলের কারনে জোত-জমি ঘর-বাড়ী হারা, নিয়োগ বাণিজ্যের দাবী মিটানোর ক্ষমতা না থাকাতে চাকুরীর দরজা তাদের জন্য খোলেনা। আর জনপ্রতিনিধি, জনগনের পক্ষে যাদের অবস্থান নেওয়ার কথা ছিল তারা মুখে এটেছে কুলুপ, চোখে বেঁধেছে নির্লজ্জের পট্টি। তিনি অবিলম্বে যে সকল পদ নিয়োগ পক্রিয়ায় অপেক্ষামান আছে সে সকল পদে চট্টগ্রামে বসবাসরত স্থায়ী বাসিন্দাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দানের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানান। তাছাড়া বন্দরের অর্থায়নে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নামে একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল করার ঘোষনা দিয়ে এবং এ বিষয়ে ভারতের প্রখ্যাত শল্যচিকিৎসক দেবী শেঠীর সাথে এম.ইউ স্বাক্ষর করার পরেও এখনো হাসপাতালের নির্মান কাজ শুরু না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে হাসপাতাল নির্মান কাজ শুরু করার জোর দাবী জানান। চট্টগ্রাম বন্দরের উপর আয়ের পাহাড় অথচ চট্টগ্রাম বন্দরের শ্রমিক কর্মচারীরা আজ পদে পদে অবর্ণনীয় দুঃখ কষ্টে দিনাতিপাত করছে যা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায়না। তিনি অবিলম্বে এ ধরণের বৈষম্য নিরসন করে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন সমূহের ন্যায্য দাবী পূরণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আহবান জানান। চট্টগ্রাম বন্দর লুটেরাদের থাবামুক্ত করতে না পারলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মান দুরুহ হয়ে উঠতে পারে বলে জনাব সুজন অভিমত প্রকাশ করেন।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বন্দর মাচ্চেন্টস (সি.এন্ড.এফ এজেন্টস) শ্রমিক ইউনিয়ন (সিবিএ) এর সভাপতি হাজী মোঃ হাসান, সাধারণ সম্পাদক বজলুর রহমান, চট্টগ্রাম পোর্ট এজেন্টস ষ্টিভিডোরস এন্ড কন্ট্্রাক্টরস এমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন এর সভাপতি এম.এ ইউছুফ হায়দার, সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফোরকান, বন্দর বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মজুমদার, চট্টগ্রাম বন্দর ডক শ্রমিক ইউনিয়ন এর সহ-সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন, নাগরিক উদ্যোগের সচিব হাজী হোসেন কোম্পানী, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, মোঃ শাহজাহান, নগর যুবলীগ নেতা সমীর মহাজন লিটন, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সদস্য স্বরূপ দত্ত রাজু প্রমূখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email