চট্টগ্রামে বর্ণাঢ্য আয়োজনে উদযাপিত হলো শুভ বুদ্ধ পূর্নিমা

রাজু চৌধুরী, চট্টগ্রামঃ- চট্টগ্রামে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহারে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা পালন করেছেন শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা।

সারা বিশ্বে বৌদ্ধধর্মাবলম্বীরা আজ ২৯ এপ্রিল রবিবার বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনায় বুদ্ধ পূর্ণিমা ২৫৬২ বুদ্ধ বর্ষ পালন করেছেন। সমবেত প্রার্থনা, শীল পালন, সেমিনার, র‌্যালি ও বিশেষ আলোচনা সভা এবং রক্তদান কর্মসূচীর মতো বিভিন্ন আয়োজনের মাধ্যমে বাংলাদেশেও সমগ্র বৌদ্ধ অঞ্চলে সকল বৌদ্ধ বিহারে বুদ্ধ পূর্ণিমা পালন করা হয়েছে।

বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তক তথাগত গৌতম বুদ্ধের জন্ম, বুদ্ধত্ব লাভ এবং মহাপরিনির্বাণ লাভ এই ত্রিস্মৃতি একই পূর্ণিমা তিথিতে সংঘটিত হয়েছিল এবং ত্রিস্মৃতি বিজড়িত এই পূর্ণিমাকে বৌদ্ধরা বুদ্ধ পূর্ণিমা বলে থাকেন।বুদ্ধের ত্রিস্মৃতি বিজরিত এই বিশেষ দিনটিকে অত্যন্ত শ্রদ্ধাচিত্তে স্মরণ করে থাকেন পৃথিবীর সর্বস্তরের বৌদ্ধরা।

আজ শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে চটগ্রামের বিভিন্ন বৌদ্ধ বিহার গুলোতে বর্নাঢ্য আয়োজনে বুদ্ধ পূর্ণিমা উদযাপিত হয়েছে । নগরীর নন্দন কানন বৌদ্ধ বিহার,কাতাল গঞ্জের নব পন্ডিত বিহার , দেব পাহাড়ের আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহার, মোগলটুলি শ্মশান বিহার,চান্দগাও শাক্যমুণি বিহার গুলোতে প্রচুর বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সমাগম হয়।

নগরীর নন্দনকানন বৌদ্ধ বিহারে বিভিন্ন সংগঠনের সমন্বয়ে শান্তি শোভাযাত্রা র‌্যালি বের হয়, র‌্যালিটি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন, এই সময় তিনি বলেন বৌদ্ধরা অত্যন্ত শান্তি প্রিয় , বুদ্ধ পূর্ণিমা যেন সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বিঘ্নে পালন করতে পারেন সেই জন্য প্রশাসন থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। এই সময় আয়োজক কমিটির সভাপতি সত্যপ্রিয় বড়ুয়া, সাধারন সম্পাদক স্বপন কুমার বড়ুয়া, বৌদ্ধ সমিতির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আদর্শ কুমার বড়ুয়া,বৌদ্ধ সমিতি যুব সভাপতি জয়শান্ত বিকাশ বড়ুয়া, মহিলার সেক্রেটারি ববি বড়ুয়া বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থাপনায় ছিলেন বৌদ্ধ সমিতি যুব’র যুগ্ম সম্পাদক সপু বড়ুয়া।

আরো উপস্থিত ছিলেন বৌদ্ধ সমিতি যুব এর যুগ্ম সম্পাদক প্রবীর বড়ুয়া সিকো , যুগ্ম সম্পাদক সীমান্ত বড়ুয়া, এছাড়া বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন বৌদ্ধ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন । শান্তির শোভাযাত্রাটি নন্দনকানন বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে হতে এনায়েত বাজার মোড় হয়ে জুবিলি রোড , নিউমার্কেট, কোতোয়ালী থানার সামনে দিয়ে লাল দীঘির পাড় , আন্দরকিল্লা হয়ে পূনরায় বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে এসে শেষ হয় । এই শোভা যাত্রায় বিভিন্ন সংগঠনের সদস্যরা বুদ্ধের ছবি সম্বলিত ব্যানার , ফেষ্টুন, টুপি এবং টি শার্ট পড়ে অংশ গ্রহন করেন। র‌্যালির সামনে ছিল ব্যান্ড দল ।

দেবপাহাড় আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ সত্যপ্রিয় মহাস্থবির বলেন, তথাগত গৌতম বুদ্ধ জগতের সকল প্রানীর জন্য চিন্তা করেছেন।তিনি সমস্ত প্রানীর দুঃখ হতে মুক্তির উপায় নিয়ে ধ্যান সাধনা করেছেন, কঠোর সাধনায় বুদ্ধত্ব লাভ করেছেন এবং নির্বাণ লাভের পথ প্রদর্শন করেন, এই বৈশাখি পূর্ণিমা তিথিতে মহাপরিনির্বাণ লাভ করেছিলেন। আমরাও সমবেত প্রার্থনা করে সকল প্রানীর সুখ, মঙ্গল এবং দুঃখ মুক্তি কামনা করছি।

নগর যুবলীগ নেতা ও সংগঠক সিজার বড়ুয়া বলেন প্রতিবছরের মতো এবারও শান্তির শোভা যাত্রায় অংশ গ্রহন করেন , তিনি বলেন তথাগত বুদ্ধের অমৃতবাণী “অহিংসা পরম ধর্ম’ আমরা বৌদ্ধরা সকল জাতির, সকল ধর্মের মানুষের মঙ্গল ও সুখ কামনা করি এই শান্তির শোভা যাত্রা সকলের মঙ্গল কামনায় শোভাযাত্রা ।

বৌদ্ধ সমিতি যুব’র সদস্য দিবাকর বড়ুয়া বলেন , শোভা যাত্রায় অভিভাবকের সাথে অনেক শিশুও ছিল, শিশুওরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ এই র‌্যালিতে তারা শুধু আনন্দই করেনি , বুদ্ধের ধর্ম এবং সকল প্রানীর প্রতি বুদ্ধের শিক্ষাও গ্রহন করেছে এবং তাদের মধ্যে ধর্মীয় চেতনা জাগ্রত হবে।

নন্দন কানন বৌদ্ধ বিহারের বুদ্ধ পূর্ণিমা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক স্বপন কুমার বড়ুয়া বলেন, প্রতি বছর বুদ্ধ পূর্ণিমায় শান্তির শোভা যাত্রা বের করা হয় এই শোভা যাত্রায় নগরীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছোট বড় অনেক সংগঠন অংশগ্রহন করে থাকে। সীমান্ত বড়ুয়া জানান, বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমিতি (মহিলা) এর উদ্যোগে অষ্টবিংশতি বুদ্ধ পূজা ও উপগুপ্ত মহাস্থবিরের পূজার আয়োজন করা হয় এই পূজার আয়োজন, পূজার ফলমূল কাটা এবং নকশা সাঁজাতে সংগঠনের সদস্যরা সারা রাত জেগে ছিলেন ।

রোটারিয়ান ডা. অমরেশ বড়ুয়া চৌধুরী, তরুন প্রজন্মের কিশোর-কিশোরীদের প্রতি আহ্ববান করে বলেন, এই বুদ্ধ পূর্ণিমা দিবসে আসুন আমরাও কামনা করি বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ সুখে শান্তিতে থাকুক। এই দেশ উন্নত ও সমৃদ্ধশালী হয়ে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে থাকবে অনাদি অনন্তকাল।

বৌদ্ধ বিহারে সকাল ৭ টা থেকে ধর্মপ্রান বৌদ্ধধর্মাবলম্বীরা শীল গ্রহন এবং পূজনীয় ভন্তের দেশনা শ্রবণ করেন।বৌদ্ধ বিহার গুলোতে ভিক্ষুগন বুদ্ধের বানী দেশনার পাশাপাশি পৃথিবীর সমগ্র প্রানীর মঙ্গল কামনা করে, জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের সুখ সমৃদ্ধি কামনা এবং দুঃখ হতে মুক্তির জন্য সমবেত প্রার্থণা করেন ।সন্ধ্যায় বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগেবিহার প্রাঙ্গনে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করার আয়োজন থাকলে বৈরী আবহাওয়া ও বৃষ্টিপাতের কারনে তা সম্ভব হয়নি।

চট্টগ্রামের সকল থানা – উপজেলার বৌদ্ধ বিহার গুলোতে বর্নাঢ্য আয়োজনে বুদ্ধ পূর্ণিমা উদযাপিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email