চট্টগ্রামে নিহত অনিকের খুনিদের ভারত থেকে আটক

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ গত ১৭জুন বিকাল অনুমান ৫টার সময় কোতোয়ালী থানাধীন ব্যাটারি গলির মুখে মোটরসাইকেল চালানোর সময় গায়ে বাতাস লাগাকে কেন্দ্র করে দামপাড়াস্থ ২নং পল্টন রোডের আবু হেনা রনিক সহ ৫ জন উঠতি বয়সী তরুন ও ব্যাটারিগলিস্থ ইমন, মোঃ মহিন উদ্দিন তুষারসহ একদল উঠতি বয়সী তরুনের মধ্যে তর্কবিতর্ক ও মারামারির ঘটনাঘটে। এরই সূত্র ধরে একই দিন রাত অনুমান সাড়ে ৮টার সময় মোঃ মহিন উদ্দিন তুষারের নেতৃত্বে ২৫/৩০ জন উঠতি বয়সী তরুন লাঠি সোটা, চাকু ও পিস্তল সহ গুলি করতে করতে দামপাড়াস্থ ২নং পল্টন রোডের মুখে আসিয়া আবু হেনা রনিক এর বড় ভাই আবু জাফর অনিককে তাহাদের পিতা মোঃ নাছির এর সামনে লাঠির আঘাতসহ চাকু দ্বারা বুকে ও কোমড়ে আঘাত করে পারিয়ে যায়।

আবু জাফর অনিককে আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাহাকে মৃত ঘোষনা করে। তাৎক্ষণিক চকবাজার থানা পুলিশ ও উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হইয়া ঘটনার প্রাথমিক তদন্তসহ জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতারের প্রচেষ্টা শুরু করেন। ইং ১৮/০৬/২০১৮ তারিখ মৃত আবু জাফর অনিক এর পিতা মোঃ নাছির বাদী হইয়া মোঃ মহিন উদ্দিন তুষারসহ ১২ জন আসামীর নাম উল্লেখসহ ১৫/২০ জন অজ্ঞাতনামা আসামীর কথা উল্লেখ করে এজাহার দায়ের করলে চকবাজার থানার মামলা নং-০৬, তারিখ- ১৮/০৬/২০১৮ইং, ধারা-১৪৪/৩০২/৩৪ দঃ বিঃ রুজু করা হয়। মামলা রুজু পরবর্তী মামলার তদন্ত কার্যক্রম শুরু করা হয় এবং এজাহারনামীয় আসামীসহ অজ্ঞাত জড়িত আসামীদের গ্রেফতারে জোর তৎপরতা শুরু করা হয়।

চট্টগ্রাম মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গ্রেফতার অভিযান পরিচালনা করা হয়। এক পর্যায়ে ১নং আসামী মোহাম্মদ মহিনউদ্দিন তুষার (৩০), পিতা-মৃত কলিম উদ্দিন খসরু, মাতা-ফেরদৌসি বেগম, সাং-৫৫/আশা মঞ্জিল, ব্যাটারী গলি, মাছ বাজার, থানা-কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম এবং ১০নং আসামী এখলাসুর রহমান প্রকাশ এখলাছ (২২), পিতা-মৃত ওমর আলী, মাতা- লাকী বেগম প্রকাশ রাখিয়া বেগম, স্থায়ী-গান্দিপাড়া, ডাকঘর-ঢেমুশিয়া, থানা- চকরিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, বর্তমানে-ক্লিপটন গার্মেন্টস এর মালিক প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরীর বিল্ডিং (নিচ তলা), ধোপা পাড়া, ব্যাটারী গলি, থানা-কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম দ্বয় যশোর বেনাপোল ইমিগ্রেশন হয়ে পার্শবর্তী দেশ ভারতে পালিয়ে যাওয়ার তথ্য পাওয়া যায়। অতপর উক্ত আসামীদ্বয়কে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ সদর দপ্তরের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট দেশে পত্র প্রেরণ করা হয়।

ইতিমধ্যে বর্ণিত আসামীদ্বয় কলকাতা যাওয়ার পর কলকাতা পুলিশের নিকট তাহাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হইলে তাহাদের চলাফেরা নজরদারিতে রাখেন। পুলিশ সদর দপ্তর হইতে প্রেরীত পত্র পাওয়ার পর ভারতীয় পুলিশ আসামী দ্বয়ের ভিসা বাতিল করে বাংলাদেশ বেনাপোল সীমান্তে প্রেরণ করিলে বেনাপোল সীমান্ত হইতে চকবাজার থানা পুলিশ আসামীদ্বয়কে গ্রেফতার করেন এবং তাহার দেখানো ও সনাক্ত মতে ইং ২৬/০৬/২০১৮ তারিখ ০৫.১৫ ঘটিকার সময় ১নং আসামী মোহাম্মদ মহিনউদ্দিন তুষার (৩০) এর ৫৫, আশা মঞ্জিল, কামাল সাহেবের বাড়ী, বেটারী গলি, থানা- কোতোয়ালী, জেলা-চট্টগ্রাম ঠিকানাস্থ বাসা হইতে ঘটনায় ব্যবহৃত ০১টি বিদেশী পিস্তল (যাহার গায়ে ইংরেজীতে খোদাই করা ঈঐওঘঅ লেখা আছে) উদ্ধার করা হয়।

উক্ত পিস্তল দিয়ে ১নং আসামী মোহাম্মদ মহিনউদ্দিন তুষার (৩০) ঘটনার সময়ে গুলি করে বলো তদন্তে জানা গেছে। অপর এজাহারনামীয় ৪নং আসামী জোনায়েদ আহম্মদ ইমন (১৯) ও ৫নং আসামী জোবায়েদ আহম্মদ শোভন (২২), উভয় পিতা-মোঃ সগির আহম্মদ, সাং-২৭নং দামপাড়া, ১নং গলি, থানা-চকবাজার, জেলা-চট্টগ্রাম’দ্বয়কে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুমিল্লা জেলার দাউদ কান্দি থানা এলাকা হতে গ্রেফতার করে চট্টগ্রামে নিয়া আসা হচ্ছে বলে সিএমপির জনসংযোগ কর্মকর্তা অলক বিশ্বাস সংবাদ মাধ্যম কে প্রেসবার্তায় জানান। তিনি আরো জানান যে,এজাহারনামীয় ও জড়িত অপর আসামীদের আটকে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email