২৪ লাখ, টাকা, ইলেকট্রিক পণ্য, জব্দ, 24 lakh

ঘোষণাবহির্ভূত পণ্যের ২৩ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকির অপচেষ্টা; ইলেকট্রিক পণ্যের চালান জব্দ

প্রায় ২৪ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে মিথ্যা ঘোষণায় আনা আরও একটি ইলেকট্রিক পণ্যের চালান সোমবার ভোরে জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. সহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শুল্ক গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, আমদানিকারক কোরিয়া বাংলা এন্টারপ্রাইজ ভারত থেকে ফ্যানমোটর ঘূর্ণায়মান মেকানিজম সঙ্গে লাগানো (Fan Motor fitted with revolving Mechanism) একটি পণ্য চালান আমদানি করে। আমদানিকারকের মনোনীত প্রতিনিধি ছিল সিএন্ডএফ এজেন্ট এস এম জসিম উদ্দিন। শুল্ক গোয়েন্দা টিমের কাছে গোপন সংবাদ থাকায় ওই পণ্য চালান এ দপ্তরের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে পরীক্ষার জন্য আইসিডির বরাবর অনুরোধ জানিয়ে পত্র পাঠানো (বি/ই লক দেয়া হয়) হয়। পরবর্তীতে আইসিডির টিম পণ্য চালানটি কমলাপুরে সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফ প্রতিনিধির সহযোগিতায় কায়িক পরীক্ষা সম্পন্ন করে। পরীক্ষার পর ফ্যান মোটর ঘূর্ণায়মান মেকানিজম সঙ্গে লাগানোর স্থলে ব্লেডবিহীন সিলিং ফ্যান পাওয়া যায়। আমদানিকারকের ঘোষণা অনুযায়ী পণ্য চালানের শুল্কের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৪২ হাজার ৪৪২ টাকা। শুল্ক গোয়েন্দার পরীক্ষা শেষে শুল্কের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৫ লাখ ৮৭ হাজার ৮৯ টাকা।

শুল্ক গোয়েন্দার সূত্রের দাবি, আমদানিকারক কর্তৃক সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফের সহযোগিতায় অসত্য ঘোষণা ও ঘোষণাবহির্ভূত পণ্যের মাধ্যমে (১২৮ শতাংশ শুল্কের স্থলে ৩৭ শতাংশ শুল্ক দিয়েছে) ২৩ লাখ ৪৩ হাজার ৭৮ টাকা শুল্ক ফাঁকির অপচেষ্টা করেছে।

এ বিষয়ে শুল্ক গোয়েন্দা দি কাস্টমস অ্যাক্ট, ১৯৬৯-এর ৩২ ধারায় মামলা দায়ের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কাস্টম হাউস, আইসিডিকে চিঠি দেয়। পরে প্রযোজ্য শুল্ক সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ায় শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ অনাপত্তিপত্র প্রদান করে।

জানা গেছে, ওই সিএন্ডএফ এজেন্ট এক মাসের মধ্যে এটি দ্বিতীয়বার মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email