ঘুষ গ্রহণকারী আলোড়িত সেই সাব-রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডল সাময়িক বরখাস্ত

ঘুষ গ্রহণকারী আলোড়িত সেই সাব-রেজিস্ট্রার সাময়িক বরখাস্ত

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাহার উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডলের সরকারি অফিসে বসে টেবিলের ড্রয়ার খুলে ঘুষ নিয়ে ফাইল সই করার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেই ভিডিও নিয়ে গণমাধ্যমেও সংবাদ প্রকাশের পর তাকে আড়াইহাজারের অতিরিক্ত দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার ও বন্দর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রারের পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা সাব-রেজিস্ট্রার সাবিকুন নাহার।

রবিবার (২৫ মার্চ) দুপুরে ইন্সপেক্টর জেনারেল অফ রেজিস্ট্রেশন (আইজিআর) খান মো. আব্দুল মান্নান তাকে বরখাস্ত করেন। সেই বরখাস্তের চিঠি দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে আসে। ওই চিঠি পাওয়ার পরপরই তা বন্দর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘রবিবার (২৫ মার্চ) সকালে সাব-রেজিস্ট্রার এসহাক আলী মণ্ডলকে আড়াইহাজার থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। তার পরিবর্তে রূপগঞ্জের সাব-রেজিস্ট্রার রেজাউল করিম বকশিকে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বন্দর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডলকে ঘুষ গ্রহণের বিষয়টি নিয়ে শোকজ করা হয়েছে। আগামী ২৮ মার্চের মধ্যে সেই শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এখন তার বিরুদ্ধে সরকারি চাকরি বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

জেলা রেজিস্ট্রার জানান, ‘রবিবার দুপুরে ইন্সপেক্টর জেনারেল অফ রেজিস্ট্রেশন (আইজিআর) খান মো. আব্দুল মান্নান আড়াইহাজারে সরেজমিন পরিদর্শন আসেন এবং দলিল লেখকসহ উপজেলা রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলে এছহাক আলী মণ্ডলের ঘুষ নেওয়ার বিষয়টির প্রথমিক সত্যতা পান। তারপরই তাকে আড়াইহাজার থেকে প্রত্যাহার ও বন্দর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসারের পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।’

প্রসঙ্গত, সরকারি অফিসে বসে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডলের ঘুষ গ্রহণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

ভিডিওতে দেখা যায়, টেবিলের ওপর কম্পিউটার। রয়েছে মুঠোফোন ও ফাইলের স্তূপ। প্রতিটি ফাইলে স্বাক্ষর করার আগে টাকা গুনে ড্রয়ারে রাখেন সাব-রেজিস্ট্রার। পাশ থেকে একজন ফাইল এগিয়ে দিচ্ছেন। এরমধ্যে একজন টাকা কম দেওয়ায় টাকা ফিরিয়ে দিচ্ছেন। পরে আবার তার চাহিদামত টাকা দিলে তা ড্রয়ারে রাখছেন। ড্রয়ারে টাকার অনেক নোট জমার পর নিজ হাতে তিনি প্যান্টের পকেটে রাখছেন।

এছাড়া সাব-রেজিস্ট্রার ঘুষ ছাড়া কোনও কাজ করেন না- এমন প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার থেকে আড়াইহাজারে দেড়শতাধিক দলিল লেখক একযোগে কর্মবিরতি পালন করেন। সাব-রেজিস্ট্রারকে প্রত্যাহার এবং একজন স্থায়ী সাব-রেজিস্ট্রারের পোস্টিং চেয়ে বিক্ষোভ করেন সমিতির সদস্যরা। রবিবার দুপুরে আইজিআর সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে দলিল লেখকরা কর্মবিরতি স্থগিত করেন।

দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন ভূইয়া ঘুষ গ্রহণকারী দুর্নীতিবাজ সাব-রেজিস্ট্রারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email