কোনো হত্যাকারী রাজনৈতিক পরিচয়ে আমাদের কাছ থেকে ছাড় পাবে না: সিএমপি

রাজনৈতিক পরিচয়ে হত্যা মামলার আসামিরা ছাড় পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান।

মঙ্গলবার (২৬ জুন) দুপুরে দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের মাল্টিপারপাস শেডে অনিক হত্যার বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, হত্যার ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই। কোনো হত্যাকারী রাজনৈতিক পরিচয়ে আমাদের কাছ থেকে ছাড় পাবে না।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিএমপি কমিশনার বলেন, বড়ভাই-ছোটভাই কোনো বিষয় না। হত্যাকাণ্ড আমাদের মেইন কনসার্ন। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত কোনো বড়ভাই-ছোটভাইও ছাড় পাবে না।

তিনি বলেন, সম্প্রতি সিএমপিতে কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আমরা মোটামুটি সব আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। অনিক হত্যার প্রধান চার আসামিকে গ্রেফতার করেছি।

‘ভারতের স্পেশাল টাস্কফোর্সের সহায়তায় আমরা দুই আসামিকে খুব দ্রুত সময়ে ফিরিয়ে আনতে পেরেছি। আরও দুই আসামিকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’ বলেন সিএমপি কমিশনার।

সংবাদ মম্মেলনে সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) শ্যামল কুমার নাথ, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসাইন, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মুহাম্মদ আবদুর রউফসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার (২৫ জুন) দিবাগত রাতে কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দির চক্রশালা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় আবু জাফর অনিক (২৬) হত্যার দুই আসামি ইমন (১৬) ও শোভন (২৪) কে। এর আগে গত শুক্রবার (২২ জুন) রাতে কলকাতার ফ্রি স্কুল স্ট্রিট এলাকায় আত্মগোপন থাকা অবস্থায় অনিক হত্যা মামলার দুই আসামি মহিনউদ্দীন তুষার (৩০) ও এখলাছুর রহমান প্রকাশ এখলাছ (২২) কে গ্রেফতার করে ভারতীয় পুলিশ। প্রক্রিয়া শেষে সোমবার (২৫ জুন) দুইজনকে বেনাপোল সীমান্তে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

১৭ জুন রাতে চট্টেশ্বরী পল্টন রোডে গাড়ির হর্ন দেওয়াকে কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে খুন হন স্থানীয় আওয়ামী নেতা মো. নাছির উদ্দিনের ছেলে আবু জাফর অনিক (২৬)। আবু জাফর অনিক পেশায় গাড়ি চালক।

জানা যায়, রোববার বিকেল ৫টার দিকে গাড়ির হর্ন দেওয়াকে কেন্দ্র করে আবু জাফর অনিকের ছোট ভাই আবু হেনা রনিকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় কিছু যুবকের। পরে রাত ৮টার দিকে সেই সমস্যা সমাধানে গিয়েছিলেন বড়ভাই ও বাবা। সেখানে বাবার সামনে অনিককে ছুরিকাঘাত করে মহিউদ্দীন তু্ষার ও তার সহযোগিরা।
পরে এ ঘটনায় ১২ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় মামলা দায়ের করেন অনিকের বাবা মো. নাছির উদ্দিন। মামলার আসামিরা হলেন, মহিনউদ্দীন তুষার (৩০), মিন্টু (৩২), ইমরান শাওন (২৬), ইমন (১৬), শোভন (২৪), রকি (২২), অপরাজিত (২২), অভি (২১), বাচা (২২), এখলাস (২২), দুর্জয় (২১) এবং অজয় (২১)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email