কৃষকের আদালতে মামলা; কলাপাড়ায় কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির নির্বাচন বন্ধ ঘোষণা

পটুয়াখালী প্রতিনিধি॥ পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা বিআরডিবির আওতাভূক্ত কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির (ইউসিসিএ) নির্বাচন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলার টুঙ্গিবাড়িয়া কৃষক সমবায় সমিতির ব্যবস্থাপক মো. সোনা মিয়া ৩১ মে পটুয়াখালীর প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা দায়ের এর প্রেক্ষিতে উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয় নির্বাচনী কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

জানা গেছে, ৭ জুন বৃহস্পতিবার ছিল এ নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল। এতে ২৮৪টি প্রাথমিক সমবায় সমিতি থেকে একজন করে ভোটার ভোট দেয়ার প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু চুড়ান্ত ভোটার তালিকা সঠিক নয় দাবি করে সোনা মিয়া আদালতে মামলা দায়ের করেন। তার দাবি, ২৮৪টি সমিতির মধ্যে ১৩৭টি সমিতি ভুয়া। যারা ভোটার হিসেবে তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত সোনা মিয়ার মামলাটি আমলে নিয়ে ১৫ দিনের মধ্যে উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তাসহ (ইউআরডিও) ৫ সদস্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে কারণ দর্শাণোর নোটিশ প্রদান করেছেন। আদালতের নির্দেশনা পাওয়ার কারণে ৬ জুন বিকেল ৩ টায় নির্বাচন কমিটি সভা করে নির্বাচনী কার্যক্রম বন্ধ ঘোষনা করেন।

উল্লেখ্য ৬ মে বিআরডিবির আওতাভূক্ত কেন্দ্রিয় সমবায় সমিতির (ইউসিসিএ) নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করা হয়। ১৬ মে আগ্রহী প্রার্থীরা মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। ৩১ মে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। এর মধ্যে পাঁচ জন পরিচালক বিনা প্রতিদ্বন্ধীতায় নির্বাচিত হন। সভাপতি পদে তিন জন, সহ-সভাপতি পদে দুই জনসহ পরিচালকের একটি পদে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল।

পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা (ইউআরডিও) মো. নূর হোসেন চৌধুরী জানান, সমবায় উপবিধি-(১) অনুযায়ী খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশের পর কারও কোনো আপত্তি থাকলে ১৫ দিনের মধ্যে সংশোধন পূর্বক চুড়ান্ত করিতে বলা হয়েছে। ওই বিধানের আলোকে খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশের পর তা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির অধীনে থাকা ২৮৪টি প্রাথমিক সমবায় সমিতির কাছে পাঠানো হয়েছে। এসময় কারও কোনো আপত্তি পাওয়া যায়নি। ফলে ভোটার তালিকা চুড়ান্ত করে প্রকাশ করা হয়েছে।
নির্বাচন পরিচালনা পর্সদের সভাপতি উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা অহিদুর রহমান জানান, ব্যালট পেপার ছাপানোসহ নির্বাচনের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়েছিল। নির্বাচনের ঠিক আগ মূহুর্তে সাবেক পরিচলনা পর্ষদ সভাপতি আ.খালেক শিকদারসহ নির্বাচন পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা অহিদুর রহমান, সদস্য সচিব উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা নুর হোসেন চৌধুরী, সমাজসেবা কর্মকর্তা মোন্তাছির বিলালাহ ও ঘূর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচীর সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামানকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর পরিপেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email