কাতালগঞ্জ আবাসিকের সড়কে ময়লার ভাগাড়, কাউন্সিলর বলছেন ভিত্তিহীন!

নাহিদ সেকান্দারঃ

একসময়ের ময়লার স্তুপের স্থানটি আজ সুগন্ধা আবাসিক নামে পরিচিত। নগরীতে অনেক অবহেলিত  এলাকা ছিল যা আজ আবাসিক এলাকায় পরিনত হয়েছে, যেমন চাঁন্দগাও আবাসিক, সিডিএ আবাসিক ইত্যাদি। একই সাথে মহল্লা বা পাড়া থেকে আবাসিক এলাকাগুলো অনেক গোছালো। যত্রতত্র ফেরীওয়ালা থেকে শুরু করে মাছ, সবজি, কাপড় বিক্রেতা ইত্যাদি চলাফেরার সুযোগ খুবই কম। রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে নালা নর্দমা থাকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন। কিন্তু ভিন্ন চিত্র দেখা গেছে কাতালগঞ্জ আবাসিকে।

জমে আছে ময়লা,কাউন্সিলর বললেন ভিত্তিহীন

শুক্রবার,  (৯ জুলাই) সরেজমিনে কাতালগঞ্জ আবাসিকে গিয়ে ১ নং রোডে শেখ বাহার উল্লাহ মসজিদের পিছনের রাস্তায় দেখা মিলে ময়লার বাগাড়ের। সপ্তাহখানেকের এই ময়লা থেকে ছড়াচ্ছে দুর্ঘন্ধ। এলাকাবাসী বলছেন, তদারকির অবহেলায় এক সপ্তাহের ময়লা জমে আজ বাগাড়ে পরিণত হয়েছে। অপরদিকে ওয়ার্ড কাউন্সিলর বলছেন ভিত্তিহীন। সচেতনতার অভাব!

করোনাকালীন এই সময়ে নগরবাসীর মনে নতুন আতংক এডিশ মশা। সড়কে থাকা ময়লার এই বাগাড় থেকে মশাবাহিত রোগ যে ছড়াবে না তাতে কোনো নিশ্চয়তা নেই।

এ বিষয়ে কাতালগঞ্জ ১নং আবাসিক এলাকার বাসিন্দা মোঃ ইসমাইল নাগরিক নিউজ বিডিকে বলেন, এই ময়লাগুলো এখানে জমে আছে প্রায় সপ্তাহখানেক হচ্ছে। প্রতিদিন এই ময়লার সাথে যোগ হচ্ছে বাসাবাড়ির নিত্য নতুন ময়লা। যদি সময় মতো ময়লাগুলো পরিষ্কার বা সরানো না হয় আরো বড় স্তুপে পরিনত হবে যা আবাসিক এলাকার সাথে একোবারে মানানসই নয়।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে চসিকের ১৬ নং চকবাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইয়েদ গোলাম হায়দার (মিন্টু) বলেন, বিষয়টি একেবারে ভিত্তিহীন। কারণ সিটি কপোরেশনের ময়লার ভ্যান প্রতিনিয়ত আবাসিকের ১,২,৩,৪ সব জায়গা থেকে ময়লা তুলে নিচ্ছে। তবে এটা সত্য যে ১ নং আবাসিক এলাকায় মসজিদের পিছনে ময়লার ভ্যান ময়লার অপসরণের পর পুনরায় সেখানে ময়লা ফেলে পরিবেশ অপরিষ্কার করছে।

একই এলাকার আরেক বাসিন্দা মোঃ আলী নাগরিক নিউজকে জানান, এই ময়লা অর্বজনা গুলো এখানে জমে থাকার কারণে একটি সময়ে গিয়ে দুর্গন্ধ তৈরি করে যার জন্য এই রাস্তা দিয়ে চলাচল কষ্টসাধ্য। এছাড়া পাশে একটি মসজিদ রয়েছে। যা মুসল্লীদের জন্য বিষয়টি স্বাভাবিক নয়।

তবে কাউন্সিলর মিন্টু বলছেন, আমি সেখানে ময়লা না ফেলার জন্য পাশে একটি ছোট আকারে ফুল গাছের বীজতলাও তৈরি করেছি। তারপরও এলাকায় বাসিন্দার সেখানে প্রতিনিয়ত ময়লা ফেলে যাচ্ছে। মনে হয় এখানে বাসিন্দাদের সচেতনতা অভাব রয়েছে। আবাসিকের বাসিন্দারা যদি সচেতন হতো তাহলে এ ধরনের অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারতো না।

দীর্ঘদিন ধরে জমে থাকা এই ময়লা আর্বজনাগুলো পরিচ্ছন্নতার নেই কোনো পদক্ষেপ। তাই অবহেলার কারণ বসত জমতে থাকা এই ময়লার স্তুপ এক সময় পরিনত হয়েছে বড় স্তুপে। স্থানী কতৃপক্ষের ও নেই তেমন কোনো পদক্ষেপ। বর্তমান ময়লা পরিস্কারের এই দাবি সময়ের দাবি বাসিন্দাদের।

নাগরিক নিউজ /তাপস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email