অস্ট্রেলীয় জ্ঞানে দক্ষ মানবসম্পদ চান প্রধানমন্ত্রী

শুধু ডিগ্রি নিলে হবে না, সমুদ্রসম্পদ থেকে অর্থনৈতিক উন্নয়নে অস্ট্রেলিয়ার কাছ থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। অনেক কিছু শিখতে হবে’।

ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনকালে সেখানকার বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে এ আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অস্ট্রেলিয়া সফরের দ্বিতীয় দিন শনিবার (২৮ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শন করেন। পরমাত্তা সাউথ ক্যাম্পাস, ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আবক্ষ ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বাংলাদেশি প্রায় ২০০ শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত।

২০১৭ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুর এই ভাস্কর্যটি উদ্বোধন করেছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের যারা এখানে আছেন তাদের অস্ট্রেলিয়া থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। আমরা সমুদ্রসীমা সমস্যার সমাধান করে ফেলেছি। সমুদ্রসীমার যে সম্পদ আছে সেই সম্পদকে আমাদের কাজে লাগাতে হবে। আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এই সম্পদ অনেক অবদান রাখতে পারে। বাংলাদেশ ১৬ কোটি মানুষের দেশ। দেশের সব মানুষের খাদ্য নিরাপত্তাসহ সবকিছু দিতে হবে। দেশ হিসেবে আমরা ছোট, মানুষ হিসেবে বেশি। কাজেই সমুদ্রসম্পদ কিভাবে আমরা কাজে লাগাতে পারি সেজন্য আমাদের বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে। এখানে ব্যবসায়ীরা আছেন, শিক্ষকরা আছেন। এব্যাপারে আপনাদের বিশেষ দৃষ্টি দেওয়া উচিত। এখান থেকে শুধু ডিগ্রি নিয়ে যাওয়া না, অনেক কিছু শিখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্লু-ইকোনোমির ব্যাপক উন্নয়নে বাংলাদেশের পরিকল্পনা রয়েছে। এক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার কাছে সক্ষমতা বৃদ্ধি, উদ্ভাবনী অর্থায়ন, ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি বিনিময়, বিভিন্ন ক্ষেত্রে অংশীদারিত্ব এবং সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের মানবসম্পদ সক্ষমতা বাড়ানো প্রয়োজন। যেখানে অস্ট্রেলিয়া প্রশিক্ষণ ও ভোকেশনাল শিক্ষার মাধ্যমে অবদান রাখতে পারে। বাংলাদেশের শিক্ষার্থী যারা আছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া জ্ঞান তাদের ভালোভাবে অর্জন করতে হবে।

জ্ঞান বিনিময় ও সমুদ্র শাসনে জুডিশিয়ারি ম্যানেজমেন্ট এবং ওশানোগ্রাফিতে প্রশিক্ষণ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়কে ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় সহযোগিতা করছে।

ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শন আমার জন্য আনন্দের, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য আমার হৃদয়কে গভীরভাবে স্পর্শ করেছে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

১৯৭৪ সালে সংসদে সমুদ্রসীমানা নির্ধারণ আইনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী চিন্তাভাবনা স্বীকৃতি হিসেবে ইনস্টিটিউট অব ওশান গভর্নেন্সের সামনে জাতির পিতার এই প্রতিকৃতি স্থাপন করা হয়েছে।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার যারা সহযোগিতা করেছিলেন সে কথা বিশেষভাবে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭২ সালের ৩১ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে দারুণ সর্ম্পক উপভোগ করছে। উন্নত দেশগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম দেশ।

মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার প্রথম দিকে যেসব বিশ্বনেতা বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছেন তাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসব বিশ্বনেতাদের মধ্যে একজন ছিলেন এডওয়ার্ড গফ হুইটলাম। তিনি ১৯৭১ সালে অস্ট্রেলিয়ান ফেডারেল পার্লামেন্টে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে দুইদেশের সর্ম্পক গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন। তিনি কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোসহ অন্যান্য দেশের স্বীকৃতি আদায়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে লবিংয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

১৯৭৫ সালের ১৯ জানুয়ারি এডওয়ার্ড গফ হুইটলাম বাংলাদেশ সফর করেন। এটি ছিলো অস্ট্রেলিয়ান কোনো সরকার প্রধানের প্রথম ও শেষ সফর।

এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের কাছে যান এবং ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তিনি সেখানে কিছু সময় দাঁড়িয়ে থাকেন। এদিকে ক্যাম্পাসে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সংগঠনের ব্যানার নিয়ে স্লোগান দেন। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোর পর প্রধানমন্ত্রী তাদের সঙ্গে কথা বলেন।

সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইন্টারকন্টিনেন্টাল সিডনি হোটেলে আসেন। সেখানে আরএমআইটি ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক জেফরি স্ট্রোকের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে।

অর্থনীতির উন্নয়নে বৈদেশিক মুদ্রার সুষ্ঠু ব্যবহারের উপর তারা বাংলাদেশের মানিকগঞ্জের শিবালয়, কুষ্টিয়ার খোকসা, রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দী এবং ময়মনসিংহের ফুলপুরে জরিপ চালাচ্ছেন বলে জানানো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, প্রতিনিধি দলের সদস্যরা তাদের জরিপের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email