অনেক নাটকীয়তার পর অবশেষে কার্যকর শাকিব-অপুর বিচ্ছেদ

অনেক নাটকীয়তার পর অবশেষে ভেঙেই গেল বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় জুটি শাকিব-অপুর সংসার। শাকিব-অপুর বিচ্ছেদ কার্যকরের বিষয়ে তৃতীয় ও শেষ শুনানি ছিল আজ সোমবার (১২ মার্চ)। কিন্তু শুনানিতে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস কেউ উপস্থিত হননি। ফলে আইন অনুযায়ী ৯০ দিন উত্তীর্ণ হওয়ায় সালিস মামলার আজ নিষ্পত্তি হয়েছে। আজ থেকে বিচ্ছেদ কার্যকর হচ্ছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) অঞ্চল ৩-এর নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন বলেন, শাকিব-অপুর তৃতীয় ও শেষ শুনানির তারিখ ছিল আজ। তারা কেউ উপস্থিত হননি। আইন অনুযায়ী ডিভোর্সের সালিশি প্রক্রিয়া নিষ্পত্তি হয়েছে। এখন থেকে তারা আর স্বামী-স্ত্রী নন।

২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল গোপনে বিয়ে করেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। এরই মধ্যে অপু বিশ্বাসের কোলজুড়ে আসে এক পুত্র সন্তান। বিয়ের দীর্ঘ আট বছর পর গত ১০ এপ্রিল বেসরকারি একটি টেলিভিশনে কথা বলতে এসে সেই পুত্রের পিতৃপরিচয় দেশবাসীর কাছে তুলে ধরেন অপু বিশ্বাস। এ সময় শাকিব খানকে স্ত্রী ও তার পুত্রকে মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান অপু।

এ নিয়ে গোটা দেশে তোলপাড় শুরু হয়। তাৎক্ষণিকভাবে পরিস্থিতি সামাল দিলে শাকিব খান স্ত্রী অপু বিশ্বাস ও তার শিশু পুত্র আব্রামকে মেনে নেন। কিন্তু আট বছর আগে বিয়ের সম্পর্ক টেলিভিশনের মাধ্যমে জনসম্মুখে আসলে শাকিব-অপুর সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু হয়। দু’জনের দেখাদেখি পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায়। অবশেষে সেই সম্পর্কের ইতি ঘটলো আজ আনুষ্ঠানিক ডিভোর্সের (তালাক) মাধ্যমে।

২০০৫ সালে আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পদার্পণ করেন অপু। তিনি ২০০৬ সালে এফআই মানিক পরিচালিত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে প্রধান নায়িকা হয়ে অভিনয় করেন শাকিব খানের বিপরীতে। অপু বিশ্বাস ৭২টি ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন। যার মধ্যে বেশির ভাগ ছবি ব্যবসা সফল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

নিউজ টি শেয়ার করুন :)

Instagram
LinkedIn
Share
Follow by Email